নোভেল কোরোনা ভাইরাস ( COVID - 19) সম্পর্কিত সমস্ত জিকে প্রশ্নত্তোর

নোভেল কোরোনা ভাইরাস ( COVID - 19) সম্পর্কিত সমস্ত জিকে প্রশ্নত্তোর


নোভেল কোরোনা ভাইরাস ( Corona Virus) বর্তমান সারা বিশ্বের কাছে একটি বিপদজ্জনক সংক্রামক ভাইরাস। বর্তমানে ১৯০ টির বেশী দেশে এই কোরোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে। এবং এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা ১২ হাজার এর বেশী।

কোরোনা ভাইরাসে [ Corona Virus ] এর আক্রান্ত হলে যে রোগ টি হয়, তার নাম দেওয়া হয়েছে 'কোভিড - ১৯' [ COVID -19]. নিন্মে পোস্টে কোরোনা ভাইরাস সম্পর্কিত সমস্ত গুরুত্বপূর্ন প্রশ্নত্তোর গুলি দেওয়া হল, যে গুলি আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে।

কোরোনা ভাইরাস

GK Questions Answer About Corona Virus


১। নোভেল কোরোনা ভাইরাস কী - এটি একটি বৃহত্তর ভাইরাস পরিবারের অংশ। মূলত, এটি Nidovirus প্রজাতির।
২। নোভেল কোরোনা ভাইরাস কিভাবে ছড়িয়ে পড়ে - কোরোনা ভাইরাস একটি সংক্রমক ভাইরাস। যেটি, মানুষের হাঁচি, কাশি, কফ থেকে ছড়ায়। এমন কি, সংক্রামক ব্যক্তির ৬ ফুটের মধ্যে গেলে, এছাড়া তার শরীরের সংস্পর্শে  গেলে, এই ভাইরাস অন্য শরীরে ছড়িয়ে পড়ে।
৩। নোভেল কোরোনা ভাইরাসের অফিসিয়াল নাম কি দেওয়া হয়েছে - SARS-CoV-2
৪। নোভেল কোরোনা ভাইরাস কোন বয়েসের মানুষের মধ্যে বেশী সংক্রমিত হয় - যেকোনো বয়েসের মানুষের শরীরে সংক্রমিত হতে পারে। তবে রোগআক্রান্ত শরীর ও বয়স্ক মানুষের ক্ষেত্রে এটি বেশী বিপদজ্জনক।
৫। কোরোনাভাইরাসের ফলে যে রোগটি হয়, তার নাম কি - WHO সম্প্রতি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ফলে সৃষ্ট রোগের নাম দিয়েছে COVID -19.
৬। প্রথম কোথায় নোভেল কোরোনাভাইরাস দেখা যায় - চীনের Wuhan, Hubei শহরে।


৭। কোরোনা ভাইরাসের মত আরও দুটি ভাইরাস সংক্রমিত রোগের নাম হল - MERS এবং SARS.
৮। কোরোনা ভাইরাসের প্রাথমিক লক্ষন গুলি কি - জ্বর, কাশি, শ্বাসকষ্ট।
৯। COVID -19 রোগে আক্রান্ত হলে কি ঘটতে পারে - ৮০ শতাংশ ক্ষেত্রে মানুষ এই রোগ থেকে নিজেরাই বেরিয়ে আসতে। ২০ শতাংশ ক্ষেত্রে হসপিটলে চিকিৎসার প্রয়োজন। এবং এটি বয়স্ক ও কোনো রোগাক্রান্ত ব্যাক্তির কাছে বিপদজ্জনক।
১০। 'কোরোনা'  শব্দের অর্থ কী - 'কোরোনা' একটি লাতিন শব্দ। যার অর্থ হল 'মুকুট'।
১১। কোরোনাভাইরাস নামকরন কী ভাবে হল - ভাইরাসের গঠনগত প্রকৃতি, পৃষ্টতলে তাদের মুকুট জাতীয় প্রক্ষেপনের কারনে।
১২। কোরোনাভাইরাস থেকে কিভাবে রক্ষা পাবেন -
আক্রান্ত ব্যক্তির কাছাকাছি যাবেন না।
কাশি বা হাঁচি দেওয়ার সময় আপনার নাক বা মুখ টি কভার করে রাখুন।
সব সময় হাত পরিস্কার রাখুন।
অ্যান্টিবায়োটিক চিকিৎসার জন্যে ডাক্তারের কাছে যান।
এছাড়া, বর্তমান পরিস্থিতি তে ভিড় যুক্ত স্থান পরিত্যাগ করুন। নিজে ও নিজের ফ্যামিলি যতটা সম্ভব ঘরের ভেতর থাকার চেষ্টা করুন।
বি:দ্র : পোস্ট টি অবশ্যই আপনার সমস্ত বন্ধদের নীচের হোয়াটসঅ্যাপ আই কনে ক্লিক করে শেয়ার করুন।

Comments