এবার মাদ্রাসা পরিচালন সমিতির 'রিট পিটিশন' কে ফিরিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট

এবার মাদ্রাসা পরিচালন সমিতির 'রিট পিটিশন' কে ফিরিয়ে দিল সুপ্রিম কোর্ট


News Desk : গত ৬ ডিসেম্বর পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন ( Madrasah Teacher Recruitment) কে বৈধ হিসেবে মান্যতা দেয় সুপ্রিম কোর্ট। কিন্তু তারপর থেকেই বিভিন্ন মাদ্রাসা স্কুল পরিচালন সমিতি, সুপ্রিম কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে গিয়ে আদালতে মামলা করে।  কিন্তু সেখানেও সফল না হলে, কিছু মাদ্রাসা স্কুল পরিচালন সমিতি 'রিট পিটিশন' দেয় এই রায়ের বিরুদ্ধচারনা করে।

West Bengal Madrasah Teacher Recruitment 2020


West Bengal Madrasah Teacher Recruitment 2020


কিন্তু, এ'দিন মাদ্রাসা পরিচালন সমিতির এই 'রিট পিটিশন' কে গ্রহন ই করল না দেশের সব্বোর্চ আদলত সুপ্রিম কোর্ট। শুক্রবার বিচারপতি নাগেশ্বর রাও ও বিচারপতির হিমন্তী গুপ্তর ডিভিশন বেঞ্চ, মাদ্রাসা পরিচালন সমিতির এই 'রিট পিটিশন' কে খারিজ করে। শীর্ষ আদালতের ডিভিশন বেঞ্চ জানায়, সুপ্রিম কোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে কোনো 'রিট পিটিশন' হয় না। 'রিভিউ পিটিশন' এর আবেদন করা যায়। কিন্তু তাতে, খুব একটা সুফল পাওয়ার সম্ভবনা কম।


প্রসঙ্গত, ২০০৮ সালে কলকাতা পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মাদ্রাসা সার্ভিশ কমিশন অবৈধ বলে, এবং তারপর থেকেই রাজ্যের হাই মাদ্রাসা স্কুল গুলোতে শিক্ষক নিয়োগে জটিলতা শুরু হয়। কিন্তু এ'দিন কলকাতা হাইকোর্টের সেই রায় কে, খারিজ করে সুপ্রিম কোর্ট জানিয়ে দেয়  ২০০৮ সালে তৈরী হওয়া মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন বৈধ এবং মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশনের মাধ্যমেই শিক্ষক নিয়োগে কথা।

আরও পড়ুন : ২০২৫ সালের মধ্যে ভারতে ১০ লক্ষ কর্মসংস্থান করবে, এই সংস্থা

সুপ্রিম কোর্টে মাদ্রাসা পরিচালন সমিতির একের পর এক মাললা খারিজ হওয়ার ফলে, রাজ্যের মাদ্রাসা স্কুল গুলিতে শিক্ষক নিয়োগের সম্ভবনা আরও উজ্বল। রাজ্য সরকারের সবুজ সংকেত পেলেই মাদ্রাসা সার্ভিস কমিশন সেই সংক্রান্ত নোটিফিকেশন বের করতে প্রস্তুত। প্রসঙ্গত, প্রায় সাড়ে তিন হাজারের বেশী শূন্যপদ ও ১৫০ টির বেশী স্কুলে প্রধান শিক্ষকের পদ খালি আছে বলে জানিয়েছে মাদ্রাসা স্কুল গুলি।
বি:দ্র : নীচের হোয়াটসঅ্যাপে ক্লিক করে  বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন। 

Comments